কুলাউড়ায় স্ত্রীর সাথে মোবাইল ফোনে কথা বলতে বলতে ট্রেনের নীচে ঝাঁপ দিলো স্বামী

ডিসেম্বর ২১, ২০১৮, ৮:৫৪ অপরাহ্ণ 👉 এই সংবাদটি ৭২২ বার পড়া হয়েছে

Loading...

কুলাউড়া প্রতিনিধি : তুমি কোনদিনই আমাকে বুঝলেনা, আমি যখন আর এই পৃথিবীতে থাকবোনা তখন তুমি আমার অস্তিস্থ খুঁজে বেড়াবে। কোন কোন মাঝরাতে যখন বৃষ্টি হবে তখন তুমি আমাকে খুঁজে বেড়াবে, আমি তখন তোমার নাগালের অনেক অনেক বাইরে থাকবো। হৃদয় দিয়ে তখন তুমি আমাকে উপলব্ধি করবে।
আর কিছুক্ষনের মধ্যে আমি চলে যাচ্ছি তোমার থেকে যোজন যোজন দূরে, বহুদূরে। তুমি সুখে থাকিও। বলেই মোবাইল ফোনকলে স্ত্রীকে রেখে স্বামী ট্রেনের নিচে ঝাঁপ দেন। ২-৪ মিনিটের ব্যবধানে স্ত্রী আবার ফোন করে স্বামীর মোবাইলে। জানতে চান তার স্বামী কোথায়? ততক্ষণে স্বামীর দেহের উপর দিয়ে চলে গেছে দ্রুতগামী ট্রেন। রেললাইনের ভেতর বাইরে পড়ে ছিলো খন্ডবিখন্ড দেহ। স্বামীর এই নির্মম পরিণতি শুনে মোবাইলের অপরপ্রান্তে থাকা স্ত্রীও মুর্চা যান।
কুলাউড়া রেলওয়ে থানা সুত্রে জানা যায়, ২০ ডিসেম্বর বৃহস্পতিবার বিকাল ৪টায় এমন মর্মান্তিক ঘটনা ঘটে কুলাউড়া উপজেলার পৌর এলাকার বিহালা গ্রামের কাছে ট্রেন লাইনে। ভুলন দাস (৩২) নামক যুবক সিলেট থেকে ঢাকাগামী ট্রেনের নিচে ঝাঁপিয়ে পড়ে আত্মহত্যা করেন।
মোবাইল নাম্বারের সুত্র ধরে রেলওয়ে পুলিশ পরিবারের লোকজনের কাছে খবর দেয়। রাত ৮টায় নিহতের লাশ উদ্ধার করে কুলাউড়া রেলওয়ে থানায় নিয়ে আসে। ২১ ডিসেম্বর সকালে নিহত ভুলনের স্ত্রী জেলা প্রশাসকের অনুমতি নিয়ে আসলে ময়না তদন্ত ছাড়াই লাশ হস্তান্তর করে রেলওয়ে পুলিশ।
রেলওয়ে থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুল মালেক জানান, পারিবারিক কলেহের জের ধরে আত্মহত্যার ঘটনা ঘটেছে। থানায় অপমৃত্যু মামলা হয়েছে।
তিনি আরও জানান, ট্রেন লম্বা হুইসেল বাজালেও ভুলন দাস রেললাইন থেকে সরেননি। লাইনের পাশে চাদরের উপরে নিজের মোবাইল ও সাথে থাকা টাকা আলগা করে রাখা ছিলো বলে স্থানীয় প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান।
সিলেট জেলার বিয়ানীবাজার উপজেলার বাসিন্দা মৃত খোকন দাসের পুত্র ভুলন দাস। তিনি পেশায় একজন পল্লী চিকিৎসক। বর্তমানে বিয়ানীবাজার উপজেলার দুবাগ ইউনিয়নের দুবাগ বাজারে ডক্টর্স চেম্বার নামে তার একটি নিজস্ব ফার্মেসী রয়েছে। যেখানে বসে তিনি রোগীদের চিকিৎসা সেবা দিতেন। বিয়ে করেছেন বছর দুয়েক আগে। স্ত্রী স্কুল শিক্ষিকা।
স্থানীয় সুত্রে জানা যায়, ভুলন দাস ৪-৫ বছর আগে বড়লেখা উপজেলার দক্ষিণভাগ বাজারে আহমদ ফার্মেসী ও কুলাউড়া উপজেলার সুরমা ফার্মেসীতে ফার্মাসিস্ট হিসেবে কাজ করেছেন।

loading...
error: এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা আংশিক নকল করে বা ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি