কুলাউড়া রুদ্রবীণা সঙ্গীত বিদ্যালয়ের ২৫ বছর পূর্তি উদ্যাপন

মার্চ ২৮, ২০১৯, ১:৫৭ অপরাহ্ণ 👉 এই সংবাদটি ৪২ বার পড়া হয়েছে

Loading...

কুলাউড়া প্রতিনিধি: ১৯৯৪ সালে কুলাউড়া শহরের মাগুরা আবাসিক এলাকায় যাত্রা শুরু হয়েছিল রুদ্রবীণা সংগীত বিদ্যালয়ের। এ বিদ্যালয়ের অনেক শিক্ষার্থী বিভিন্ন পর্যায়ে খ্যাতি অর্জন করেছেন।সোমবার এ প্রতিষ্ঠানটি ২৫ বছর পূর্তি ও পঞ্চম সনদপত্র বিতরণী অনুষ্ঠান করে। এ সময় সংগীতের বিভিন্ন শাখায় উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীদের সনদ বিতরণ করা হয়।কুলাউড়া পৌর শহরের ডাকবাংলোতে অবস্থিত মুক্ত মঞ্চে জাতীয় সংগীত পরিবেশনের মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠান শুরু হয়। প্রথম পর্বে রুদ্রবীণা বিদ্যালয়ের নীতিনির্ধারণী পরিষদের সভাপতি আইনজীবী এ টি এম মান্নানের সভাপতিত্বে ও সঙ্গীত শিল্পী নান্টু দাসের সঞ্চালনায় আয়োজিত সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন কুলাউড়া পৌরসভার মেয়র শফি আলম ইউনুছ।

বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের কুলাউড়া উপজেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক গৌরা দে, কুলাউড়া ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতির সাধারণ সম্পাদক মঈনুল ইসলাম, কুলাউড়া থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) কানাই লাল চক্রবর্তী, সমকাল প্রতিনিধি এম শাকিল রশীদ চৌধুরী, উদীচী শিল্পী গোষ্ঠীর উপজেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক নির্মাল্য মিত্র সুমন, প্রিয় কুলাউড়ার সম্পাদক এ কে এম জাবের, বাংলাদেশ টুডে প্রতিনিধি শাকির আহমদ, আরো উপস্থিত ছিলেন রুদ্রবীণা বিদ্যালয়ের নীতিনির্ধারণী পরিষদের সদস্য এইচ ডি রুবেল প্রমুখ।

স্বাগত বক্তব্যে রুদ্রবীণা সঙ্গীত বিদ্যালয়ের অধ্যক্ষ ড. রজত কান্তি ভট্টাচার্য বলেন, এলাকায় সংগীত চর্চা বৃদ্ধির উদ্দেশে বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠা হয়। এ প্রতিষ্ঠানে রবীন্দ্র সংগীত, নজরুল সংগীত, লোক গান, উচ্চাঙ্গ সংগীত, যন্ত্র সংগীত, তবলা ও নৃত্য বিষয়ে শিক্ষা দেওয়া হয়। ধ্রুবপরিষদ নামের বেসরকারি একটি সংগীত বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বীকৃতি পেয়েছে এ বিদ্যালয়টি। বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা সংশ্লিষ্ট বিষয়ে বিভিন্ন মেয়াদী কোর্সের পরীক্ষায় অংশ নেন।

জাতীয়, আঞ্চলিক ও স্থানীয় পর্যায়ে অনুষ্ঠিত বিভিন্ন সংগীত প্রতিযোগিতায় বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা অংশগ্রহণ করে কৃতিত্ব অর্জন করেছেন। বিদ্যালয়ের ১২ জন শিক্ষার্থী বেতারে সহ-শিল্পী হিসেবে কাজ করছেন। বর্তমানে এ বিদ্যালয়ে ৬০ জন শিক্ষার্থী ও ছয় জন শিক্ষক রয়েছেন।তিনি আরো বলেন, শুরু থেকেই মাগুরা এলাকায় তাঁর বাসায় এ বিদ্যালয়ের কার্যক্রম চলছে। সরকারি কোনো জমি বন্দোবস্ত পাওয়া গেলে সেখানে স্থায়ীভাবে বিদ্যালয়টি স্থাপন করা যেত। এ ছাড়া অর্থাভাবে প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি কেনা সম্ভব হচ্ছে না। প্রধান অতিথি শফি আলম বলেন, ‘রুদ্রবীণা সংগীত বিদ্যালয় ছোট শহরের বড় প্রতিষ্ঠান। এ রকম একটি প্রতিষ্ঠানের ২৫ বছর পার হওয়া অবশ্যই গৌরবের।

এ বিদ্যালয়কে টিকিয়ে রাখতে হবে। বিদ্যালয়ের বিরাজমান সমস্যার সমাধানে সম্ভব সব ধরনের সহযোগিতা করা হবে। ’ আলোচনা শেষে অতিথিরা বিভিন্ন মেয়াদী কোর্স পরীক্ষায় উত্তীর্ণ এ বছর ৫২ জন শিক্ষার্থীর হাতে ক্রেস্ট ও সনদ তুলে দেন। দ্বিতীয় পর্বে বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা সংগীত ও নৃত্য পরিবেশন করেন।

loading...