‘মৃত’ সনদ নিয়ে হেঁটে বাড়ি ফিরল রোগী

মে ২৬, ২০১৭, ৭:২৫ অপরাহ্ণ 👉 এই সংবাদটি ১২৪ বার পড়া হয়েছে

Loading...

অনলাইন ডেস্ক: হাসপাতালের নীচে প্রস্তুত শববাহী গাড়ি। সঙ্গে ফুলের মালা, রজনীগন্ধার স্টিক, ধূপ নিয়ে চলে এসেছেন আত্মীয়েরাও। হাসপাতালও ডেথ সার্টিফিকেট নিয়ে তৈরি। কিন্তু হাসপাতালের নির্দিষ্ট শয্যার সামনে গিয়ে হতবাক সকলে। হাসপাতালের করিডোরে তাকিয়ে সবার চোখ কপালে। সেখানে দিব্যি হেঁটে বেড়াচ্ছেন ষাটোর্ধ্ব জয়নারায়ণ।

জানা গেছে, কলকাতার বাসিন্দা জয়নারায়ণ পান্ডে বেশ কয়েক দিন ধরেই হাওড়া জেলা হাসপাতালে ভর্তি। কয়েক দিন ধরে অবস্থা একটু ভালোর দিকে হওয়ায় তাকে হাসপাতালে রেখেই বাড়িতে গিয়েছিলেন স্বজনরা। হঠাৎ হাসপাতাল থেকে ফোন, জয়নারায়ণ পান্ডে আর নেই!

মৃত্যুসংবাদে মুহূর্তে এলাকায় শোকের ছায়া। ফোন পেয়ে ছুটে এসেছিলেন আত্মীয়-স্বজন ও প্রতিবেশীরা। মৃতদেহ হস্তান্তরের আগে হাসপাতাল থেকে দেয়া হয় মৃত্যুসনদও। মুহূর্তে সবার মাঝে খুশির রেশ ছড়িয়ে পড়লেও পরে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের ভুলে সবাই ক্ষোভ প্রকাশ করেন। অভিযোগ ওঠে, এ সময় ইস্যু হওয়া মৃত্যুসনদ ছিঁড়ে ফেলে দেন হাসপাতালকর্মীরা।

এদিকে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানায়, হাঁপানি এবং যক্ষ্মা রোগ নিয়ে জয়নারায়ণ গত ১৬ মে হাসপাতালে ভর্তি হন। হাসপাতালের ৭২ নম্বর বিছানা বরাদ্দ দেয়া হয়েছিল তাকে। সুস্থ হলে গত মঙ্গলবার তাকে হাসপাতাল থেকে ছেড়ে দেয়া হয়। কিন্তু জয়নারায়ণ পান্ডে হাসপাতাল ছেড়ে বাড়ি যাননি। হাসপাতালের বারান্দায় থাকা আরেক সংকটাপন্ন রোগীকে তিনি তার বিছানা ছেড়ে দেন। তবে এ কথা জানত না হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

বুধবার ভোরবেলা বারান্দার এক রোগী ৭২ নম্বর বেডে মারা যান। আর ওই ৭২ নম্বরে যেহেতু জয়নারায়ণ ছিলেন, তাই হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তার বাড়িতে মৃত্যুসংবাদ পাঠিয়ে দেয়। এদিকে ‘মৃত’ জয়নারায়ণের জন্য যে ফুল এনেছিল স্বজনরা, তা পরিয়েই তারা জীবিত জয়নারায়ণকে বাড়িতে নিয়ে গেছেন।

loading...
error: এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা আংশিক নকল করে বা ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি