আজ শহীদ জননী জাহানারা ইমামের ১৮তম মৃত্যুবার্ষিকী

জুন ২৭, ২০১২, ১২:০৭ পূর্বাহ্ণ 👉 এই সংবাদটি ৪২ বার পড়া হয়েছে

Loading...

যুদ্ধাপরাধীদের বিচার আন্দোলনের অন্যতম পুরোধা শহীদ জননী জাহানারা ইমামের ১৮তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ। দীর্ঘদিন মুখগহ্বরে ক্যানসারে ভোগার পর ১৯৯৪ সালের এই দিনে যুক্তরাষ্ট্রের একটি হাসপাতালে মারা যান এই মহীয়সী নারী। জাহানারা ইমাম ১৯৭১ সালে স্বাধীনতা যুদ্ধে নিজের সন্তান গেরিলা মুক্তিযোদ্ধা রুমিকে হারান। নব্বইয়ের দশকে স্বাধীনতাবিরোধী রাজাকার ও আলবদরদের বিচারের দাবিতে আন্দোলনের অগ্রভাগে ছিলেন তিনি। ১৯৯২ সালে একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি গঠনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন। একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধকালীন যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের দাবিতে গড়ে উঠেছিল ওই সংগঠন। এ আন্দোলনের ধারাবাহিকতায় ‘শহীদ জননী’ হিসেবে দেশব্যাপী পরিচিত হয়ে ওঠা এ নারী পরিণত হন যুদ্ধাপরাধীদের বিচার আন্দোলনের প্রতীকে। ১৯৯২ সালের ২৬ মার্চ তার নেতৃত্বাধীন ‘গণআদালত’-এ যুদ্ধাপরাধীদের প্রতীকী বিচার হয়েছিল। রোজনামচা আকারে লেখা আত্মজীবনীমূলক গ্রন্থ ‘একাত্তরের দিনগুলি’ বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের এক অসাধারণ দলিল। জাতি আজ গভীর শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করবে এই শহীদ জননীকে। দিনটি পালনে বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠন নানা কর্মসূচির আয়োজন করেছে। একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি রাজধানীর ডব্লিউভিএ মিলনায়তনে ‘জাহানারা ইমাম স্মৃতিপদক’ প্রদান, ‘জাহানারা ইমাম স্মারক বক্তৃতা’ ও আলোচনা সভার আয়োজন করেছে। অনুষ্ঠান শুরু হবে বিকেল ৪টায়। স্মারক বক্তৃতা দেবেন অর্থনীতিবিদ অধ্যাপক আবুল বারকাত। বাসদ সকাল সাড়ে ৮টায় শহীদ বুদ্ধিজীবী কবরস্থানে শহীদ জননীর সমাধিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ করবে। বিকেল সাড়ে ৪টায় জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের দাবিতে মিছিল ও সমাবেশ করবে সমাজতান্ত্রিক মহিলা ফোরাম।
সূত্র : সকালের খবর ২৬ জুন ২০১২
loading...
error: এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা আংশিক নকল করে বা ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি