অবশেষে শুরু হলো ট্রান্স এশিয়ান রেল রুটের সংস্কার কাজ

আগস্ট ১৮, ২০১৮, ৮:১৩ অপরাহ্ণ 👉 এই সংবাদটি ২৩৮ বার পড়া হয়েছে

Loading...

বিশ্বজিৎ রায়: নানা জল্পনা- কল্পনার অবসান ঘটিয়ে অবশেষে শুরু হলো ট্রান্স এশিয়ান রেল রুটের কুলাউড়া-শাহবাজপুর অংশের রেললাইন পুনঃস্থাপনের কাজ ।
গত ১০ আগস্ট শুক্রবার থেকে প্রাথমিক পর্যায়ে মৌলভীবাজার জেলার বড়লেখা উপজেলার সীমান্ত এলাকা কুমারশাইল গ্রামের জলংগা ছড়ার উপর পুরাতন রেল ব্রিজ ভাঙ্গার মাধ্যমে রেলের সংস্কার কাজ শুরু করেছে ভারতের কালিন্দী রেল নির্মাণ প্রতিষ্ঠান । দুই দেশের প্রধানমন্ত্রী আগামী মাসে এই রেললাইন পুনঃস্থাপন কাজের আনুষ্টানিক উদ্বোধন করার কথা রয়েছে।
১৮৯৬ সালের ৪ ডিসেম্বর আসাম-বেঙ্গল রেলওয়ের অংশ হিসেবে চালু হওয়া কুলাউড়া-শাহবাজপুর রেলপথটি ঘন ঘন ট্রেন দুর্ঘটনা, লোকসান এবং স্টেশন ভবনগুলোও ঝুঁকিপূর্ণ হওয়াসহ নানা কারণ দেখিয়ে ২০০২ সালের ৭ জুলাই বন্ধ করে দেওয়া হয় । দীর্ঘ দিন ট্রেন চলাচল বন্ধ থাকার কারণে নষ্ট হয় রেলওয়ের কোটি কোটি টাকার সম্পদ, দখল হয় বহু সরকারি ভূ-সম্পত্তি। রেলের সম্পদ রক্ষা এবং আবার ট্রেন চালুর দাবিতে রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠন বিভিন্ন কর্মসূচিও পালন করেন। ২০১৩ সালের ৯ নভেম্বর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বড়লেখা সফরকালে এক জনসভায় রেল লাইন চালুর ঘোষণা দেন। তার ২ বছর পর ২০১৫ সালের ২৬ মে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় ৬৭৮ কোটি টাকা ব্যয়ে কুলাউড়া-শাহবাজপুর রেলপথ পুন:স্থাপন প্রকল্প অনুমোদন হয়। এরমধ্যে বাংলাদেশ সরকার দিবে ১২২ কোটি ৫২ লাখ টাকা এবং ভারত সরকার ৫৫৫ কোটি ৯৯ লাখ টাকা।
গত বছরের ১৫ নভেম্বর রাজধানীর রেলভবনে বাংলাদেশ রেলওয়ের মহাব্যবস্থাপক (পূর্ব) আব্দুল হাই এবং ভারতের কালিন্দী রেল নির্মাণ প্রতিষ্ঠান এর ভাইস প্রেসিডেন্ট শারদ শর্মা এই রেল নির্মাণের চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন।
ইতিমধ্যে রেলের উপর জন্মানো ঝোঁপঝাড় পরিষ্কার করার পর গত ১০ আগস্ট শুক্রবার থেকে প্রাথমিক পর্যায়ের কাজ শুরু হয়েছে। শুরুতেই পুরাতন রেলব্রিজ ভাঙা ও পুরাতন রেল লাইন তোলার কাজ চলছে । একশ জনের মত শ্রমিক কাজ করছে।

রেলওয়ে সূত্র জানিয়েছে, ৪৪ দশমিক ৭৭ কিলোমিটার দীঘ্র্ এই রেলপথের পুরোটাই দ্বৈত গেজ লাইনে পুনর্বাসন করা হবে। এরমধ্যে সাত দশমিক ৭৭ কিলোমিটার লুপ লাইনের কাজ হবে। ট্রেন লাইন পুনর্বাসনের পাশাপাশি ছয়টি স্টেশনের মধ্যে জুড়ী, দক্ষিণভাগ, বড়লেখা ও শাহবাজপুর বি শ্রেণি এবং কাঁঠালতলি ও মুড়াউল স্টেশন ডি শ্রেণিতে পুনসংস্কার করা হবে। এই রেললাইনটি চালু হলে কুলাউড়া থেকে শাহবাজপুর পর্যন্ত প্রতিদিন পাঁচটি ট্রেন চলাচল করবে। লোকাল ট্রেন ছাড়াও আন্তঃনগর ট্রেন চলবে। পরবর্তী সময়ে ভারতীয় ট্রেনও চলবে এ পথ দিয়ে। কাজ শুরুর পর ২৪ মাসের মধ্যে কাজ শেষ হওয়ার কথা রয়েছে।

প্রায় ১৫ বছর পর কুলাউড়া-শাহবাজপুর রেলপথের পুন:স্থাপনের কাজ শুরু হওয়ায় অঞ্চলের প্রায় ৮ লক্ষাধিক মানুষের মনে আশার আলো জেগেছে। রেলপথ চালু হওয়ার পর ব্যবসা-বাণিজ্যের নতুন দ্বার উন্মোচিত হবে। সেইসাথে বদলে যাবে এ অঞ্চলের চার উপজেলার চেহারা।

loading...
error: এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা আংশিক নকল করে বা ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি